আগাকমীকাল বোরহানউদ্দিন ও দৌলতখান পৌরসভা নির্বাচন

তালাশ প্রতিবেদক॥ ভোলার বোরহানউদ্দিন ও দৌলতখান পৌরসভায় শনিবার (৩০ জানুয়ারি) ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন।

ইতোমধ্যে কেন্দ্রগুলোতে পাঠানো হয়েছে ব্যালট পেপার, ভোটের বাক্সসহ নির্বাচনী সরঞ্জাম। নির্বাচনী এলাকায় থাকছে চার স্তরের নিরাপত্তা। কেন্দ্রগুলোতে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট স্টাইকিং ফোর্স ও আনসার বাহিনী মোতায়েন থাকছে।

এদিকে দুই পৌরসভার ১৮টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৮টি ভোট কেন্দ্রকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে। যার মধ্যে দৌলতখানে ৪টি ও বোরহানউদ্দিনে ৪টি রয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, ভোলার বোরহানউদ্দিন ও দৌলতখান পৌরসভায় ৫ মেয়রসহ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮১ জন প্রার্থী। যাদের মধ্যে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৬১ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৫ জন রয়েছে।

বোরহানউদ্দিন পৌরসভায় মেয়র পদে লড়ছেন ৩ জন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. রফিকুল ইসলাম, বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মনিরুজ্জামান কবির ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুস সালাম।

এছাড়া এ পৌরসভায় ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিল পদে লড়ছেন ৩৩ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৭ জন। এখানে মোট ভোটার সংখ্যা ১০ হাজার ৭১৬ জন। যাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ হাজার ৩৯৫ জন এবং নারী ভোটার ৫ হাজার ৩২১ জন।

অন্যদিকে দৌলতখান পৌরসভায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দুই প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। যাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র জাকির হোসেন তালুকদার ও বিএনপি প্রার্থী আনোয়ার হোসেন কাকন।
অন্যদিকে এখানে ৯ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ২৮ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৮ জন লড়ছেন। এখানে মোট ভোটার সংখ্যা ১২ হাজার ৬০৬ জন। যাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬ হাজার ৭০৮ জন এবং নারী ভোটার ৫ হাজার ৮৯৮ জন।

এদিকে নির্বাচনকে সামনে রেখে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনী এলাকায় প্রশাসনের নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। থাকছে ৪ স্তরের নিরাপত্তা।

জেলা রির্টানিং অফিসার আলাউদ্দিন আল মামুন জানান, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। কেন্দ্রগুলোতে নির্বাচনী সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। ৪ স্তরের নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

২ পৌরসভায় মোতায়েন থাকছে ১৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, ২ প্লাটুন বিজিপি, ৬ সেকশন-র‌্যাব, জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের টিমসহ বিপুল পরিমাণ পুলিশ এবং স্টাইকিং ফোর্স।

error: Content is protected !!