ঢাকা, রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম
প্রকাশ : এপ্রিল ২২, ২০২১

চরবাড়ীয়ায় অবৈধ ড্রেজার মেশিন পুড়িয়ে দিলো প্রশাসন

অনলাইন ডেস্ক

দৈনিক আজকের তালাশ’র সহযোগীতায়
তালাশ প্রতিবেদক ॥ বরিশাল সদর উপজেলার চরবাড়িয়া ইউনিয়নের উত্তর লামচরীতে একটি অবৈধ আত্মঘাতি ড্রেজার পুরিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। বুধবার বিকেলে চরবাড়ীয়া ইউনিয়নের উত্তর লামচরী এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করেন সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিশাত তামান্না। অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের অন্যান্য যন্ত্রপাতিও ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এসময় বালু উত্তোলনকারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করতে পারেনি প্রশাসন। বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন-২০১০ এর আওতায় এ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়।

জব্দ করা বালু উত্তোলনের মেশিন ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। গত ২০ এপ্রিল দুপুরে আত্মঘাতি ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ব্যাপারে স্থানীয় বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে অভিযোগ আসে দৈনিক আজকের তালাশ অফিসে। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে বালু উত্তোলনের সত্যতা পাওয়ার পরে আজকের তালাশ’র প্রতিবেদক বরিশাল সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে বিষয়টি অবহিত করেন। পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় সহকারী কমিশনার (ভূমি)। সেখানে তিনি উপস্থিত হওয়ার আগেই ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়েন ড্রেজার ব্যবসায়ীরা। পরে ড্রেজারের মালামাল জব্দ করে স্থানীয় ইউপি সদস্য কাঞ্চন আলী ব্যপারীর কাছে জিম্মায় রেখে আসে প্রশাসন।

কিন্তু প্রশাসনের নির্দেশ অমান্য করে স্থানীয় কিছু নামধারী সাংবাদিক ও নেতাকে ম্যনেজ করে এস্কেনদার ফকিরের বাড়ীতে রাতের আধাঁরে অবৈধ ভাবে নদী থেকে বালু উত্তলোন করে জমি ভরাটের কাজ চালিয়ে যান। পরেদিন বুধবার (২১ এপ্রিল) খবর শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিশাত তামান্না অবৈধ ড্রেজারটি পুড়িয়ে ফেলেন এবং বালু ভরাটকৃত জমিতে কোন ধরনের কাজ না কারার নির্দেশ দেন তিনি। সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিশাত তামান্না জানায়,‘সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে অবৈধভাবে বালু কাটার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। অবৈধ এই ড্রেজারটি সরঞ্জাম সহ ধংস করে দেওয়া হয়েছে।

আমরা ইতিমধ্যেও অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে অনেক ড্রেজার ধংস করেছি, ভবিষ্যতে আমাদের এ ধরনের অভিযান অব্যহত থাকবে।’ উল্লেখ্য, স্থানীয়দের অভিযোগ পাওয়ার পরে আজকের তালাশ সহ বেশ কয়েকটি প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার গণমাধ্যমকর্মীরা ঘটনাস্থলে গেলে মিডিয়া ম্যানেজের নামে অবৈধ ওই কাজের পক্ষে তদবির শুরু করেন একাধিক ব্যক্তি।

এদের মধ্যে সায়েস্তাবাদ এলাকার ড্রেজার ব্যবসায়ী বাচ্চু ওরফে গরদা বাচ্চু, তিনি অর্থের বিনিময়ে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে বেশ কয়েকবার চেষ্টা চালান তাতেও ব্যর্থ হওয়ার পরে জাতীয় একটি দৈনিকের সাংবাদিক পরিচয়দানকারী আজমির হোসেন সুহাদ অবৈধ ড্রেজারকে বৈধ বলে হুংকার দিয়ে সেখান থেকে সাংবাদিকদের চলে যেতে বলেন। ড্রেজার অবৈধ কিংবা বৈধ এটি দেখার দায়িত্ব প্রশাসনের, প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে এমন উত্তর দিলে সুহাদ উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, ড্রেজারটি বৈধ ওনাদের ডির্স্টাব করবেন না। পরে বরিশালের বেশ কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মী বিষয়টি ধামাচাপা দিতে আজকের তালাশকে ফোন দেয়। কিন্তু দৈনিক আজকের তালাশ নীতিতে অটল থেকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়।


আপনার মন্তব্য

error: Content is protected !!