ঢাকা, শনিবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম
প্রকাশ : অক্টোবর ২৬, ২০২০

নগরীতে ফিল্মী স্টাইলে সন্ধ্যা রাতে দোকানের টিন কেটে টাকা ও কাজগপত্র লুট

অনলাইন ডেস্ক

তালাশপ্রতিবেদক: বরিশাল নগরীর ১৬ নং ওয়ার্ডের ১৩৪ নং
ষ্টোল’র মেসার্স হাবিব ষ্টোর্সে গত ২৩ অক্টোবর সন্ধ্যা সাড়ে ৭
টার দিকে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে পরস্পর যোগসাজশে মাধ্যমে চুরির
উদ্দেশ্যে দোকানের উপরের টিনের সাউনি কৌশলে কাটিয়া ভিতরের
প্রবেশ করেন একই এলাকার প্রমিত আমিনুল পরশ ও অপার অমিনুল।
পরে দোকানের মধ্যের ক্যাশ টেবিলের ড্রয়রে থাকা নগদ ২ লক্ষ ৭৬
হাজার টাকা নিয়া যায়। একই সময় মেসার্স হাবিব ষ্টোর্স এর
এইচ.আর নেভিগেশনের অফিস রুমের ভিতরে প্রবেশ করে জমির
দলিল,ট্রেড লাইসেন্স, ব্যবসায়ীক কাগজপত্র, দোকানের চুক্তিপত্র,
জমির খাজনা, দাখিলা, মিউটেশনসহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ন
কাগজপত্র নিয়া যায়। এতে প্রায় ৩ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে
বলে জানিয়েছেন মোঃ ইউনুস। মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে, উক্ত
চুক্তির ঘটনা পাশ্ববর্তী বাসা থেকে এক ব্যাক্তি আমাকে ফোন
করে জানালে আমি সঙ্গে সঙ্গে গিয়ে দেখতে পাই যে,আসামীরা
আমার দোকানের নগদ টাকা ও মূল্যবান কাগজপত্র নিয়া যেতে
আছে। ১ নং আসামী এ.কে.এম আমীনুল হককে পাইয়া উক্ত ঘটনার
সম্পর্কে জিজ্ঞেস করিলে সকল আসামী সহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জন
ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়া আমাকে আসামীরা মারধর
করে। এক পযায়ে ১ নং আসামী নির্দেশে ২ নং আসামী আমাকে
খুন করার উদ্দেশ্যে মাথালক্ষ্য করিয়া লোহার রড দিয়া বাড়ি মারলে উক্ত
বাড়ি আমার বাম হাত দিয়া ঠেকাইলে হাতের আঙ্গুল ভেঙ্গে জখম
হয়। পরে ৩ নং আসামী অপার আমিনুল আমার পকেটে থাকা আমার
ব্যাবহিত মোবাইল আই ফোনটি নিয়া যায়। যার মূল্য ৫৫ হাজার
টাকা। এর পরে ৪ নং আসামী আবুদ্দুল্লা আমার পকেটে থাকা ১৫
হাজার টাকা জোর পূর্বক ভাবে নিয়া যায়। পরে আমি ডাক
চিৎকার করলে লোক জন আসার টের পেয়ে আসামীরা ঘটনাস্থল
থেকে পালিয়ে যায়। যাওয়ার সময় আমাকে হুমকি দিয়া যায়। যে
শালা আজ লোকজনের কারনে তোকে খুন করতে পারলাম না। আজ যে
ভাবে তোর দোকানে নগদ টাকা ও কাগজপত্র নিয়া গেলাম ঠিক
তেমনই লোকজন নিয়ে এসে তোর দোকান দখল করবো। সন্ত্রাসী
বাহিনীর হাতে হামলার শিকার মোঃ ইউনুস বরিশাল কোতয়ালী
মডেল থানায় গিয়ে ঘটনাটি জানালে থানা কতৃপক্ষ ইউনুসকে
আদালতে গিয়ে মামলা করার পরামর্শ দেন। পরে উক্ত ঘটনায় বরিশালের

বিজ্ঞ চীফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে এ.কে এম
আমীনুল হক ,মোঃ প্রমিত আমীনুল পরশ, অপার আমিনুল ও
আবুদ্দুল্লা সহ অজ্ঞাত আরো ৮/১০ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা
দায়ের করেন হামলার শিকার মোঃইউনুস নিজে বাদী হয়ে। তবে
হামলার শিকার ইউনুস সুষ্ঠ বিচারের দাবি জানিয়েছে আদালতের
কাছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!