ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ই আগস্ট, ২০২০ ইং

শিরোনাম
প্রকাশ : জুলাই ৩, ২০২০

শেবাচিমে নারী ইন্টার্ন চিকিৎসককে উত্যক্তের ঘটনা ধামাচাপা দিতে নাটকিয়তা!

অনলাইন ডেস্ক

মজিবর রহমান নাহিদ :-

বরিশালে করোনা ওয়ার্ডে ইন্টার্ন চিকিৎসককে উত্যক্ত করার অভিযোগ উঠেছে শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দুই কর্মচারীর বিরুদ্ধে।

জানা যায়, ২১ মার্চ থেকে শেবাচিমের হাসপাতালের প্রায় ২শ’ ইন্টার্ন চিকিৎসকরা করোনা ওয়ার্ডের রোগীদের সেবা দিয়ে আসছিলেন। এসব নবীন ফ্রন্টলাইনের যোদ্ধাদের মধ্যে ইতিমধ্যে ৫জন করোনায় সংক্রমিত হয়। এক নারী ইন্টার্ন চিকিৎসক গত ২৭ জুন করোনা আক্রান্ত হয়ে করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি হন। তিনি তৃতীয় তলার একটি কক্ষে ছিলেন।

ইন্টার্ন চিকিৎসক তরিকুল ইসলাম জানান, ২৮ জুন করোনা ইউনিটে কর্মরত হাসপাতালের স্টাফ দিদারুল ও নুরুল ইসলাম নানা অজুহাতে চার বার করোনা আক্রান্ত ওই ইন্টার্ন চিকিৎসকের কক্ষে প্রবেশ করে এবং তাকে উত্ত্যক্ত করে। এ ঘটনায় মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন তিনি। বিষয়টি তিনি তার সহকর্মীদের মুঠো ফোনে জানান।

পরে এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচারের দাবী জানিয়ে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা শেবাচিম হাসপাতালে পরিচালকের সাথে দেখা করে এবং ভুক্তভোগী ওই নারী চিকিৎসক পরিচালক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানায়।

উত্ত্যক্তের এ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য ওই দুই কর্মচারী তালবাহানা করছে বলে দাবি করেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

একাধিক ইন্টার্ন চিকিৎসক অভিযোগ করে বলেন, শেবাচিম হাসপাতালে কর্মচারীদের একটি বড় সিন্ডিকেট রয়েছে যা বরিশালবাসী জানে। এই সিন্ডিকেটের হাতে রোগীরা অসহায়। করোনা ওয়ার্ডের বিনামূল্যে অস্কিজেন সিলেন্ডার বিক্রি, টাকার বিনিময়ে রক্ত বিক্রি, যেকোন কাজ করে বকশিস চাওয়া সহ হাসপাতালের রোগীরা এখন এসব সিন্ডিকেটের হাত থেকে রক্ষা পেতে চায়।

এ বিষয়ে শেবাচিমের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন গণমাধ্যমকে জানায়, তদন্ত করে ব্যবস্থা যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর