ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ঠা জুন, ২০২০ ইং

শিরোনাম
প্রকাশ : মে ৮, ২০২০

বরিশাল নগরীতে শ্রমিক খুন!

অনলাইন ডেস্ক

তালাশ প্রতিবেদকঃ
যাত্রী তোলাকে কেন্দ্র করে বরিশাল নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনালে এক ইজিবাইক (ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সা) চালকের হামলায় অপর এক ইজিবাইক চালক নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
আজ শুক্রবার (০৮ মে) দুই দফায় এই হামলার ঘটনায় আহত ইজিবাইক চালক মো. জাকির গাজী (৩২) কে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।
নিহত জাকির গাজী মহানগরীর বিমানবন্দর থানাধীন রামপট্টি এলাকার বাসিন্দা সোমেদ গাজীর ছেলে। মহানগরীর এয়ারপোর্ট থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) এসএম জাহিদ-বিন-আলম বিএসএল নিউজকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
নিহত জাকিরের ভাতিজা আল আমিন বিএসএল নিউজকে জানান, ‘তার চাচা একজন ইজিবাইক চালক। প্রতি দিনের ন্যায় সকালে ইজিবাইক নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন জাকির হোসেন। পরে নথুল্লাবাদে যাত্রী তোলা নিয়ে অপর এক ইজিবাইক চালকের সাথে ঝগড়া হয়। এসময় জাকির হোসেনকে মারধর করে অপর চালক। এতে সে গুরুতর আহত হয়।
আল আমিন বলেন, ‘খবর পেয়ে আমার বাবা নথুল্লাবাদ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। পথিমধ্যে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে পুনরায় তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। এসময় জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে এয়ারপোর্ট থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) এসএম জাহিদ-বিন-আলম বিএসএল নিউজকে বলেন, ‘ঘটনাটি শুনেছি। আমি নিজেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তবে এটি হত্যা কিনা সেভাবে বলা সম্ভব হচ্ছে না। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
তিনি বলেন, ‘শুনেছি মৃত্যুর পূর্বে যাত্রী তোলা নিয়ে দুই অটো চালকের মধ্যে দুই দফায় বিরোধ হয়। প্রথমে সকাল ১০টার দিকে বাবুগঞ্জের রামপট্টিতে জাকির গাজীর সাথে অপর ইজিবাইক চালকের সাথে ঝগড়া হয়। পরে তা নিয়ে দ্বিতীয় দফায় নথুল্লাবাদে আবার তাদের মধ্যে নাকি হাতাহাতি বা মারামারি হয়েছে।
এই ঘটনার পরে নিহতের ভাই এসে তাকে বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে তিলক নামক স্থানে অসুস্থ হয়ে পড়েন ইজিবাইক চালক জাকির হোসেন। এরপর তাকে শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।
ওসি বলেন, মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য শেবাচিম হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তাছাড়া বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অভিযুক্তর নাম পরিচয় এখনও জানা যায়নি। এই বিষয়ে নিহতের পরিবার অভিযোগ দিলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


আপনার মন্তব্য